বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ১২:৫২ অপরাহ্ন [gtranslate]
শিরোনাম :
🏘 অফিস এর ঠিকানা: অল আইটি বিডি, জিএস ভবন (১ম, ২য়, ৩য়, ৪র্থ, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা),আলতাফুন্নেসা খেলার মাঠের পশ্চিমে, শেরপুর রোড, সাতমাথা, বগুড়া।
পৌর নির্বাচনে মন্ত্রী-এমপিরা প্রচারণায় যেতে পারবে না ইসি
/ ৬০ Time View
Update : সোমবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৫, ৫:২০ পূর্বাহ্ন

ঢাকা: অবশেষে পৌর নির্বাচনে সরকারি সুবিধাভোগী ব্যক্তিদের নির্বাচনী এলাকায় সফর ও প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় নিষেধাজ্ঞা রেখে আচরণবিধি চূড়ান্ত করা হয়েছে।

সেই সঙ্গে স্বতন্ত্র হিসেবে মেয়রপ্রার্থী হতে ১০০ ভোটারের সমর্থন তালিকা দেয়ার বাধ্যবাধকতা রেখে নির্বাচন বিধিমালা করেছে নির্বাচন কমিশন।

রোববার সংশোধিত নির্বাচন বিধিমালা ও আচরণ বিধিমালার প্রস্তাবিত সংশোধনী আইন মন্ত্রণালয়ে ভেটিংয়ের জন্য পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইসি সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম।

পৌরসভা সংশোধন আইনের গেজেট শনিবার জারি হয়েছে। রোববার তা হাতে পেয়ে দুটি বিধিমালা চূড়ান্ত করেন ইসি। বিধিমালার যেদিন গেজেট হবে সেদিনই তফসিল দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে। গত বৃহস্পতিবার অধ্যাদেশ বাতিল করে শুধু মেয়র পদে দলীয় মনোনয়নের বিধান রেখে পৌর সংশোধন বিল পাস হয়েছে। এর আগে অধ্যাদেশ জারির পর মন্ত্রী-এমপিদের প্রচারণায় যাওয়ার সুযোগ রেখে আচরণবিধির খসড়া করায় ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল নির্বাচন আয়োজনকারী সংস্থাটিকে। রোববার এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইসি সচিব বলেন, এবার গতবারের মতো তা করা হয় নি। সরকারের মন্ত্রী-এমপিসহ সরকারি-সুবিধাভোগী ব্যক্তিদের কোন প্রার্থীর পক্ষে পৌর নির্বাচনী প্রচারণায় যেতে পারবেন না- এমন বিধানই রাখা হয়েছে। কাউন্সিলর প্রার্থীদের দলীয় মনোনয়নের সুযোগটি বাতিল হওয়ায় বিধিমালায়ও সংশোধন আনা হয়েছে। নির্বাচন বিধিমালার সংশোধিত প্রস্তাবের বিষয়ে সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম জানান, মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন দেয়ার জন্য দলের সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদক বা সমপর্যায়ের পদাধিকারী বা ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তির প্রত্যয়নের বিধান রয়েছে। দলকে এ ক্ষেত্রে তফসিল ঘোষণার ৫ দিনের মধ্যে রিটার্নিং অফিসারের কাছে ও ইসি সচিবালয়ে দলের ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তির নাম, পদবি ও নমুনা স্বাক্ষরসহ একটি চিঠি দিতে হবে। মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে ১০০ ভোটারের সমর্থনযুক্ত তালিকা দেয়ার বিধান রাখা হয়েছে বলে জানান সচিব। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মনোনয়নপত্রের সমর্থন যাচাই করার জন্য তালিকা থেকে দ্বৈবচয়নের ভিত্তিতে ৫ জনকে বাছাই করা হবে। পৌরসভাপ্রতি ১ লাখ টাকা দলীয় ব্যয় রাখাসহ আইনের আলোকে মনোনয়নপত্র, প্রতীক ব্যবহারে প্রয়োজনীয় সবকিছুতে সংশোধনী এনে বিধিমালা করা হয়েছে। বিধিমালা হাতে পেলেই তফসিল ঘোষণা করবে ইসি। এ বিষয়ে ইসি সচিব বলেন, আইন মন্ত্রণালয়ের ভেটিং শেষে বিধিমালা গেজেট আকারে জারি করার পরই তফসিল ঘোষণা করা হবে। এজন্য সবকিছু দ্রুত প্রস্তুত রাখা হচ্ছে। ডিসেম্বরের মধ্যে পৌরসভা সাধারণ নির্বাচনের কথা রয়েছে। ইসি কর্মকর্তারা জানান, সোমবার আইন মন্ত্রণালয় বিধিমালায় ভেটিং সেরে ইসিতে পাঠালে তা কমিশন আবার দেখবে। মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে ইসির দ্বিমত না থাকলে বিধিমালা জারির জন্য এসআরও নম্বর দিতে আইন মন্ত্রণালয়ে তা ফের পাঠানো হবে। এসআরও নম্বর যোগ হলেই বিধিমালা গেজেট প্রকাশ করবে। বৃহস্পতিবারের মধ্যে তফসিল দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে। এর মধ্যে কমিশন সভা যেদিন বসবে সেদিন তফসিল দেয়া হবে। মন্ত্রণালয়ের ভেটিং শেষে সোমবারই সবকিছু চূড়ান্ত হলে সোমবারই তফসিল দিতে প্রস্তুত ইসি।

আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

More News Of This Category
Our Like Page